বাংলাদেশের পরিস্থিতির দিকে তীক্ষ্ণ নজর ভারতের

সংবাদদাতা
সংবাদদাতা
প্রকাশিত: 0৩:২৯, অক্টোবর 0৯ ২0১৮ |
Print
ফাইল ছবি

জীবনকন্ঠ ডেস্ক :

    জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আর মাত্র তিন মাস বাকি। বাংলাদেশের এ নির্বাচন ভারতের জন্য গভীর তাৎপর্যপূণ। তাই নির্বাচন কেন্দ্র করে বাংলাদেশের দিকে তীক্ষ্ণ নজর রাখছে ভারত। ভারতের প্রভাবশালী সংবাদমাধ্যম আনন্দবাজার পত্রিকা এ খবর প্রকাশ করেছে।

খবরে বলা হয়েছে, ২০১৪ সালে বিএনপি নিরপেক্ষ ভোটের জন্য তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবি করেছিল। দলটি এবার কিছু সিভিল সোসাইটি গ্রুপ ও সংবাদপত্রের একাংশের সমর্থন নিয়ে সেই একই একই উপায়ে শেখ হাসিনার ওপর চাপ সৃষ্টি করছে যাতে তিনি পদত্যাগ করেন এবং নিরপেক্ষ ভোট হয়।

তবে বিরোধীদের ওই প্রস্তাব মানতে কোনোভাবেই রাজি নয় শেখ হাসিনা। আওয়ামী লীগের বক্তব্য, গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত এ সরকার সাংবিধানিক সীমা উত্তীর্ণ হওয়ার পর আবার মানুষের ভোটের জন্য প্রস্তুত।

বিএনপি ও জামায়াত যৌথভাবে আক্রমণাত্মক প্রচারে নেমেছে। কিন্তু ইন্টারন্যাশনাল রিপাবলিকান ইন্সটিটিউটের (আইআরআই) সাম্প্রতিক পাবলিক অ্যাটিচুড সার্ভে বলছে যে, ভোটে আওয়ামী লীগ জিতবে।

ব্লুস্টার নামের এক সংস্থার গুরুত্বপূর্ণ মক্কেল হল বিএনপি। তারা পশ্চিমেও প্রচার চালাচ্ছে। এমনকি, খালেদা জিয়া ও তাঁর পুত্র তারিক রহমানকে অবিলম্বে ছাড়া না হলে গোটা বাংলাদেশ জুড়ে আক্রমণাত্মক আন্দোলন শুরু হয়ে যাবে, এ কথাও তারা বলেছে।



মার্কিন সংস্থার সমীক্ষা অনুসারে, বাংলাদেশের ৬৬ ভাগ মানুষ হাসিনাকে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দেখতে চান। ১০ অক্টোবর এই সমীক্ষা আনুষ্ঠানিক ভাবে প্রকাশ করার কথা। এই আইআরআই সমীক্ষাটির খবর প্রথম করে বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থা। সেটিও চিত্তাকর্ষক ঘটনা। অনেকেই এই সমীক্ষা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন, কেন এই সমীক্ষা আইআরআই ওয়েবসাইটে দেওয়া হচ্ছে না? তখন এটি ওয়েবসাইটে দিয়ে দেওয়া হয়। তখন প্রতিপক্ষ এই সমীক্ষার বিশ্বাসযোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে। আইআরআই একটি অলাভজনক নিরপেক্ষ সংস্থা বলে পরিচিত। তবে এই রিপোর্টটি এই মুহূর্তে আওয়ামি লিগকে শক্তি দিয়েছে।

ঢাকায় বহু মানুষ খালেদা জিয়া, বিশেষত তাঁর পুত্রের লন্ডন থেকে রাজনীতি নিয়ন্ত্রণের কুপ্রয়াসের ঘোরতর বিরোধী। পুত্রের ভাবমূর্তি এতটাই কালিমালিপ্ত যে সামগ্রিক ভাবেই মানুষ আতঙ্কিত খালেদা-পুত্রের জন্য।

খালেদা মানে তো শুধু খালেদা বা তাঁর পুত্র নন। সঙ্গে আছে জামায়াত। লন্ডনেও জামায়াত ও তারেক যৌথ ভাবে সক্রিয়। এই তো কিছু দিন আগে লন্ডনের আইনজীবী লর্ড আলেকজান্ডার কার্লাইল-কে ভারতে পাঠিয়ে সাংবাদিক বৈঠক করানোর চেষ্টা হয়। তখন দিল্লিতে বাংলাদেশের হাইকমিশনার সৈয়দ মুজতবা আলির ভাইপো সৈয়দ মুয়াজ্জেম আলি সক্রিয় ভূমিকা নেন। তিনি ভারত সরকারের উপর তীব্র চাপ সৃষ্টি করেন। জামায়াতের ওই প্রবীণ ব্রিটিশ আইনজীবী সম্পর্কে অনেক তথ্য দেন।

জানা যায়, তিনি যে পাসপোর্ট ও ভিসা নিয়ে আসছেন, সেই কাগজপত্রেও ভারতে আসার সঠিক কারণ জানানো হয়নি। তিনি আদপে টুরিস্ট ভিসা নিয়ে ভারতে আসছিলেন। দিল্লি প্রেস ক্লাবে তাঁর সাংবাদিক সম্মেলনের কথা ঘোষণাও করে দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু কেন্দ্রীয় সরকার তাঁকে দিল্লি বিমানবন্দর থেকেই লন্ডনে ফেরত পাঠায়। দিল্লির যুক্তি ছিল, টুরিস্ট ভিসায় এ দেশে এসে তিনি কোনও রাজনৈতিক কর্মসূচিতে শামিল হতে পারেন না।

ভারতের কাছে এখন ঢাকার অনুরোধ শোনা বিশেষভাবে জরুরি। বাংলাদেশ মনে করে, ছোট দেশ হলেও তাদের বিদেশনীতি এখন যথেষ্ট আক্রমণাত্মক।

খবরে বলা হয়েছে, নির্বাচনের মুখে তাই আর যাই হোক, জামায়াতকে অক্সিজেন দেয়া যাবে না। বিএনপির সংসদীয় দল ও আরও কয়েক জন খালেদার দূতও সম্প্রতি দিল্লি গিয়ে বোঝানোর চেষ্টা করেছিলেন যে ভারত যদি খালেদাকে পূর্ণ সমর্থন করে তবে খালেদা জামায়াতকেও পরিত্যাগ করতে পারে। বিএনপি ব্যবসায়ীদের দল। বাণিজ্যের স্বার্থে ভারতের সঙ্গে সম্পর্ক পুনরুদ্ধার করতে চায়। দিল্লি এই প্রস্তাবে রাজি হয়নি কারণ খালেদা জামায়াত ও মৌলবাদীদের সঙ্গে সম্পর্ক পরিত্যাগ করবেন এ কথা বিশ্বাসযোগ্য নয়।

আইআরআই সমীক্ষার ৩৩ পৃষ্ঠার রিপোর্টে বলা হয়েছে যে শতকরা ৬২ ভাগ মানুষ মনে করেন দেশ সঠিক পথে চলেছে। শতকরা ৬৯ ভাগ মানুষ বর্তমান অর্থনীতি নিয়ে সন্তুষ্ট। শতকরা ৫৭ ভাগ মানুষ নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়েও খুশি। ২০১৫ সালেও আইআরআই সমীক্ষা করেছিল। এ ভাবে তাতেও রিপোর্ট ছিল ইতিবাচক। ২০১৫ সালে ব্রিটিশ কাউন্সিল, অ্যাকশন এড বাংলাদেশ এবং বাংলাদেশের ইউনিভার্সিটি অব লিবারাল আর্ট যে সমীক্ষা করে তাতে শতকরা ৭৫ ভাগ যুব সমাজ মনে করে, আগামী ১৫ বছরের মধ্যে বাংলাদেশ আরও উন্নত রাষ্ট্রে পরিণত হবে। শতকরা ৫২ ভাগ মানুষ হাসিনার পক্ষে।

এই রিপোর্ট ইতিবাচক। তবে ভোটের ফলে এই সমীক্ষা শেষ পর্যন্ত প্রতিফলিত হবে তো? মৌলবাদী শক্তি ও আন্তর্জাতিক এক দুষ্টচক্রের চক্রান্ত সফল হবে না তো?


জীবনকন্ঠ/পিডি 

বিনোদন, লাইফস্টাইল, তথ্যপ্রযুক্তি, ভ্রমণ, তারুণ্য, ক্যাম্পাস নিয়ে লিখতে পারেন আপনিও - janoterkontho@gmail.com or মতিঝিল অফিসঃ খান ম্যানশন, ১০৭ মতিঝিল, ঢাকা-১০০০

আপনার মতামত লিখুন :