অাগামী মার্চে ডাকসু নির্বাচন হতে পারে : ঢাবি ভিসি

সংবাদদাতা
সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ১১:৪৯, সেপ্টেম্বর ১৭ ২0১৮ |
Print
ফাইল ছবি

জীবনকন্ঠ ডেস্ক :

   ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. আখতারুজ্জামান বলেছেন, নতুন করে কিছু বলার নেই। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) নির্বাচন নিয়ে আমাদের প্রভোস্ট কমিটি, শৃঙ্খলা পরিষদ, সিন্ডিকেট থেকে একটি নির্দেশনা আগেই দেওয়া আছে। সেটা হলো মার্চ ২০১৯। ওই সময়ে নির্বাচন করার বিষয়টি টার্গেট আছে।


১৬ সেপ্টেম্বর (রবিবার) ছাত্রলীগ, ছাত্রদল, ছাত্র ইউনিয়নসহ ক্যাম্পাসে ক্রিয়াশীল সংগঠনগুলোর সঙ্গে বৈঠক করে ঢাবি প্রশাসন। এ বৈঠকে শেষে গণমাধ্যমকে তিনি একথা বলেন। 

আখতারুজ্জামান বলেন, নির্বাচনটা দরকার। সে জন্য ছাত্রসংগঠনগুলোর সঙ্গে আলোচনা করেছি। ছাত্রসংগঠনগুলোর সঙ্গে আরও বৈঠক দরকার হতে পারে।

উপাচার্য বলেন, নির্বাচন করার জন্য অনেকগুলো পর্যায় আছে। ভোটার তালিকা প্রণয়ন করতে হবে। আজকে একটা সভা হলো। আমাদের প্রক্টরিয়াল বডির সদস্যরা এগুলো নোটডাউন করেছেন। এগুলো আমরা পর্যালোচনা করব। আরও বৈঠক লাগতে পারে।

তিনি বলেন, হলের প্রাধ্যক্ষরা ভোটার তালিকা তৈরির কাজ করছেন। আশা করি, অক্টোবরের মধ্যে খসড়া ভোটার তালিকা করতে পারব। ভোটার তালিকা প্রণয়ন একটি জটিল কাজ। এই কাজগুলো করতে পারলে আমরা অনেকটা এগিয়ে যাব।

ড. আখতারুজ্জামান বলেন, ছাত্র সংগঠনগুলোর পক্ষ থেকে চমৎকার বক্তব্য এসেছে। ডাকসু নির্বাচনে কী কী করণীয় এ বিষয়গুলো উঠে এসেছে। এরই আলোকে আমরা পরবর্তী করণীয় ঠিক করতে পারব। 

ছাত্র সংগঠনগুলোর মধ্যে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি রেজওয়ানুল হক শোভন, সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী, ঢাবি ছাত্রলীগের সভাপতি সঞ্জিত চন্দ্র দাস এবং সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসাইন, ছাত্রদলের পক্ষে কেন্দ্রীয় সভাপতি রাজিব আহসান, ঢাবি ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক আবুল বাসার সিদ্দিকি উপস্থিত ছিলেন।

ডাকসু নির্বাচন নিয়ে সবচেয়ে বেশি সরব বাম দলগুলোর নেতারা মিটিং শুরুর প্রায় ৩০ মিনিট পর সেখানে উপস্থিত হন। তাদের মধ্যে ছিলেন ছাত্র ইউনিয়নের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক লিটন নন্দী, ছাত্র ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় সভাপতি গোলাম মোস্তফা। জাসদ ছাত্রলীগ, ছাত্রমৈত্রী, সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্টসহ বিভিন্ন ক্রিয়াশীল ছাত্রসংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

ছাত্রদলের প্রতিনিধি দলকে বিশ্ববিদ্যালয়ের গাড়িতে করে বিশেষ ব্যবস্থাপনায় নিরাপত্তা দিয়ে আলোচনা সভাস্থলে নিয়ে আসেন বিশ্ববিদ্যালয়ের তিনজন সহকারী প্রক্টর।

প্রতিবছর ডাকসু নির্বাচন হওয়ার কথা থাকলেও সর্বশেষ ১৯৯০ সালের ৬ জুন ডাকসু নির্বাচনের পর বেশ কয়েকবার উদ্যোগ নেওয়া হলেও সেই নির্বাচন আর হয়নি। 


জীবনকন্ঠ/পিডি

বিনোদন, লাইফস্টাইল, তথ্যপ্রযুক্তি, ভ্রমণ, তারুণ্য, ক্যাম্পাস নিয়ে লিখতে পারেন আপনিও - janoterkontho@gmail.com or মতিঝিল অফিসঃ খান ম্যানশন, ১০৭ মতিঝিল, ঢাকা-১০০০

আপনার মতামত লিখুন :